শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৪৫ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
১০ ফেব্রুয়ারিত আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা,ডাক পেয়েছে তৃণমূল সপ্তগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের আজীবন দাতা সদস্য হলেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আব্দুল হাই(মায়া) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সভাপতি নুরুল ইসলাম নাহিদ ওসি তাজুল ইসলাম কানাইঘাট থেকে বিদায়,বিয়ানীবাজারে যোগাযোগ গোলাপগঞ্জে সিএনজি অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ,আহত ৩ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করবেন আজ বিয়ানীবাজারে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন সিলেটে সাংস্কৃতিক উৎসবে শিল্পীদের পরিবেশনায় মুগ্ধ দর্শক সিলেট ঢাকা মহাসড়কে একই পরিবারের ৪ জন সহ ৫ জন নিহত গোলাপগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
ম্যারাডোনার মৃত্যুশোকে ভাত খাওয়া ছেড়ে দিছেন রুহুল আমিন

ম্যারাডোনার মৃত্যুশোকে ভাত খাওয়া ছেড়ে দিছেন রুহুল আমিন

দর্পণ ডেস্ক : ফুটবল যাদুকর দিয়াগো ম্যারাডোনার মৃত্যুশোকে ভাত খাওয়া বন্ধ রেখে ৭ দিনের শোক পালন করছেন নাটোরের বাগাতিপাড়ার রুহুল আমিন সরকার বাবু নামে এক যুবক।

কিংবদন্তি ফুটবলারের মৃত্যুতে সারা বিশ্বের মতো বাগাতিপাড়ার ভক্তদের মাঝেও নেমে এসেছে শোকের ছায়া। তেমনই এক ভক্ত বাগাতিপাড়া উপজেলার বিহারকোল বাজারের ভাই বন্ধু মুদি দোকানী রুহুল আমিন সরকার বাবু। প্রিয় ফুটবলার ম্যারাডোনার মৃত্যুতে খাওয়া দাওয়া বন্ধ রেখে শোক পালন করছেন। গত বুধবার থেকে তিনি ভাত, মাছ ও মাংস খাওয়া বন্ধ রেখেছেন। এভাবেই তিনি সাত দিনের শোক পালন করছেন।

শুধু খাওয়া বন্ধ রাখেননি রুহুল আমিন সরকার বাবু। প্রিয় ফুটবলারের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য কালো ব্যাজ ধারণ করেছেন। তার দোকানে প্রিয় ফুটবলারে মৃত্যুতে সাত দিনের শোক পালনের ব্যানার ও আর্জেন্টিনার পতাকাসহ কালো পতাকা উত্তোলন করে রেখেছেন। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকাও উত্তোলন করেছেন।

রুহুল আমিন সরকার বাবু জানান, আর্জেন্টাইন ফুটবলার দিয়াগো ম্যারাডোনার মৃত্যুতে তিনি সাত দিন শোক পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এদিন থেকে তিনি ভাত, মাছ ও মাংস খাওয়া বন্ধ রেখেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে ম্যারাডোনার আত্মার শান্তি কামনার মধ্য দিয়ে শোক পালনের কর্মসূচি শেষ করবেন।

স্থানীয়রা জানান, দোকানি বাবু ম্যারাডোনা ভক্ত। তিনি প্রতিটি বিশ্বকাপের সময় দোকান থেকে তার বাড়ি পর্যন্ত এক কিলোমিটার দীর্ঘ আর্জেন্টিনার পতাকা টাঙিয়ে রাখতেন। এছাড়া আর্জেন্টিনার ম্যাচের দিনে তিনি দর্শকদের জন্য বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা করেন। ম্যারাডোনার মৃত্যুতে তিনি ভেঙে পড়েছেন।

উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার বলেন, তিনি বাবুকে সেই ১৯৮৬ সাল থেকেই ম্যারাডোনা ভক্ত হিসেবে জানেন। তার এই শোক পালনই প্রমাণ করে আর্জেন্টাইন এই তারকা ফুটবলারের মৃত্যুতে বাংলাদেশি ভক্তরা কতটা মর্মাহত।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।