শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
১০ ফেব্রুয়ারিত আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা,ডাক পেয়েছে তৃণমূল সপ্তগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের আজীবন দাতা সদস্য হলেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আব্দুল হাই(মায়া) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সভাপতি নুরুল ইসলাম নাহিদ ওসি তাজুল ইসলাম কানাইঘাট থেকে বিদায়,বিয়ানীবাজারে যোগাযোগ গোলাপগঞ্জে সিএনজি অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ,আহত ৩ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করবেন আজ বিয়ানীবাজারে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন সিলেটে সাংস্কৃতিক উৎসবে শিল্পীদের পরিবেশনায় মুগ্ধ দর্শক সিলেট ঢাকা মহাসড়কে একই পরিবারের ৪ জন সহ ৫ জন নিহত গোলাপগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
হবিগঞ্জের পাহাড়পুরে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে এমপি মজিদ খাঁন

হবিগঞ্জের পাহাড়পুরে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে এমপি মজিদ খাঁন

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে বদলপুর ইউনিয়নের পাহাড়পুর বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের খোঁজ-খবর নিতে শনিবার বিকালে সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জের সংসদ সদস্য এডভোকেট আব্দুল মজিদ খাঁন।

এসময় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা তাঁর কাছে ভয়াবহ আগুনে পুড়ে যাওয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও ক্ষয়ক্ষতি হওয়া মালামালের পরিমাণ তুলে ধরেন। সব শোনে ব্যবসায়ীদের শান্তনা দেন ও সহমর্মিতা প্রকাশ করেন এমপি আব্দুল মজিদ খাঁন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- আজমিরীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মর্তুজা হাসান, বানিয়াচং উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী, বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা. হাসিনা আক্তার, জেলা পরিষদ সদস্য নাজমুল হাসান, আজমিরীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিছবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া, বদলপুর ইউপি চেয়ারম্যান সুষেনজিৎ চৌধুরী, দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. লুৎফুর রহমান ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মাদ আলী, এটিএন নিউজের জেলা প্রতিনিধি আব্দুল হালিম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকাল আনুমানিক সাড়ে ৪ টায় পাহাড়পুর বাজারে বিষ্ণুপদ দাসের মালিকাধীন একটি জালের দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। ওই সময় দোকানটি বন্ধ অবস্থায় ছিল। মুহূর্তেই আগুন চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। আগুনের লেলিহান শিখা দেখে বাজারের লোকজন শোর-চিৎকার শুরু করলে ব্যবসায়ী, কর্মচারী ও আশপাশের লোকজন দৌড়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। এরপর যে যার মত নদী, পুকুর ও নলকূপ থেকে পানি ঢেলে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে।

দীর্ঘ ২ ঘন্টা যাবৎ চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারায় পরবর্তীতে স্থানীয়ভাবে ছোট পাওয়ার পাম্প মেশিন লাগিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালানো হয়। এতে কাজ না হলে এক পর্যায়ে বানিয়াচং ও নবীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয় এলাকাবাসী। কিন্তু সুষ্ঠু যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় বানিয়াচং ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছুতে পারেনি। তবে নবীগঞ্জ থেকে একটি ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌছে নদী থেকে ছোট মেশিনের মাধ্যমে পানি ঢেলে রাত অনুমানিক ৮ টার দিকে প্রায় সাড়ে ৪ ঘন্টার অক্লান্ত পরিশ্রমে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।

 

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।