বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
মাহফুজের সাথে বিচ্ছেদ করে নতুন সংসার গড়লেন ইভা সিলেট নগরীতে আত্মহত্যা করেছে আপন দুই বোন জলবায়ু বিষয়ে বিশ্ব নেতাদের কাছে ৬টি প্রস্তাব পেশ করলেন শেখ হাসিনা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ৩৮ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজ লেখক, সংগঠক, অভিনেতা প্রশান্ত লিটনের ৪৩ তম জন্মদিন বিশ্বনাথে গলায় ছোরা চালিয়ে যুবকের আত্মহত্যা বহু সংখ্যক সিদ্ধান্ত গ্রহণের মধ্যদিয়ে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা সম্পন্ন গোলাপগঞ্জে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় দাদ-নাতির মৃত্যু স্কটল্যান্ডে সহকর্মীর ছুরিকাঘাতে বিয়ানীবাজারের এক যুবক খুন বিয়ানীবাজারের রামদায় মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ
৭ বছর আগে নিহত মরহুম শামীমকে দেখাগেল সাইকেল চালাতে!

৭ বছর আগে নিহত মরহুম শামীমকে দেখাগেল সাইকেল চালাতে!

নিউজ ডেস্ক :: ৭ বছর আগে খুন হওয়া মরহুম শামীম কে দেখাগেল সাইকেল চালাতে!এই অবাক বা হতবাক কাণ্ড দেখা গেছে বগুড়া সদর এলাকায়।

বগুড়ায় ৭ বছর আগে খুন হওয়া শামীম (২৬) নামে এক যুবককে হঠাৎ দেখা গেছে সাইকেল চালিয়ে ঘোরাফেরা করতে। অথচ তাকে খুনের মামলায় সাড়ে চার মাস জেল খেটেছেন আজিজার রহমান (৩১) নামে এক ব্যক্তি। সাত বছর ধরে আদালতে নিয়মিত হাজিরা দিয়েও আসছেন তিনি।

দীর্ঘ ৭ বছর পর সোমবার সকালে হঠাৎ শামীমের দেখা মিলেছে বগুড়ার সদর উপজেলার মানিকচক এলাকায়।এসময় স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়।

তাকে জীবিত দেখা গেছে, এমন খবর মুহূর্তে  ছড়িয়ে পড়ে চারিদিকে।সাথে সাথে শতশত গ্রামবাসী তাকে এক নজর দেখার জন্য ভিড় করেছিলেন ঐ এলাকায়।এরপর পুলিশ তাকে নিয়ে যায়।এবং বগুড়া সদর থানায় পুলিশ হেফাজতে রাখে।

শামীম সদর উপজেলার শাখারিয়া এলাকার বাসিন্দা। তার বাবার নাম শাহিন। আর আজিজার রহমান পার্শ্ববর্তী এলাকা মানিকচকের বাসিন্দা। তার বাবার নাম মৃত ধলু প্রামাণিক। আজিজার পেশায় শহরের বড়গোলা এলাকার একটি মুদির দোকানের কর্মচারী।

আজিজার রহমানের বলেন, ‘শামীমের কাছে এক লাখ টাকা পাওনা ছিল আমার। সাত বছর আগে শামীমকে টাকা জন্য চাপ দেই। ওই সময়ই শামীম গ্রাম থেকে উধাও হয়ে যায়। পরে আমার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন শামীমের মা ঝর্ণা বেগম।বর্তমানে শামীম হত্যা মামলাাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আমি এ মামলায় সাড়ে চারমাস জেল খেটেছি। এখনো নিয়মিত আদালতে হাজিরা দিয়ে আসছি। সোমবার সকালে মানিকচক এলাকায় শামীমকে বাইসাইকেল চালিয়ে ঘোরফেরা করতে দেখা যায়। পরে আমার ছোট ভাই স্থানীয় লোকজন সহ তাকে আটক করে। পরবর্তীতে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ এসে তাকে (শামীম) থানায় নিয়ে যায়।’

বগুড়ার সদর থানার ওসি সেলিম রেজা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘শামীম বর্তমানে থানা হেফাজতে রয়েছেন। আর হত্যা মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি