বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
মাহফুজের সাথে বিচ্ছেদ করে নতুন সংসার গড়লেন ইভা সিলেট নগরীতে আত্মহত্যা করেছে আপন দুই বোন জলবায়ু বিষয়ে বিশ্ব নেতাদের কাছে ৬টি প্রস্তাব পেশ করলেন শেখ হাসিনা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ৩৮ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজ লেখক, সংগঠক, অভিনেতা প্রশান্ত লিটনের ৪৩ তম জন্মদিন বিশ্বনাথে গলায় ছোরা চালিয়ে যুবকের আত্মহত্যা বহু সংখ্যক সিদ্ধান্ত গ্রহণের মধ্যদিয়ে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা সম্পন্ন গোলাপগঞ্জে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় দাদ-নাতির মৃত্যু স্কটল্যান্ডে সহকর্মীর ছুরিকাঘাতে বিয়ানীবাজারের এক যুবক খুন বিয়ানীবাজারের রামদায় মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ
পরকীয়ার টানে স্ত্রীকে তালাক,শ্যালিকাকে বিয়ে করবেন আপন দুলাভাই!

পরকীয়ার টানে স্ত্রীকে তালাক,শ্যালিকাকে বিয়ে করবেন আপন দুলাভাই!

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শিবপুর গ্রামের মৃত শামছু উদ্দিনের ছেলে কুয়েত প্রবাসী হাফিজ মাওলানা রাশিদ আহমদ নয় বছর আগে কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার ইছাকলস গ্রামের হারুন অর রশিদের মেয়ে সপ্না বেগমকে (৩৫) বিয়ে করেন। তাদের সংসারে দুই মেয়ে সন্তান রয়েছে।

বিয়ের নয় বছর পর আপন শ্যালিকা আকলিমা বেগম (২১) সঙ্গে দুলাভাই হাফিজ মাওলানা রাশিদ আহমদ এর পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দীর্ঘদিন ধরে তাদের এ সম্পর্ক গোপন থাকে।এরপর একপর্যায়ে তা আর গোপন থাকেনি।গত ঈদুল আযহার আগে বড় বোন স্বপ্না বেগমের বাড়িতে বেড়াতে আসেন আখলিমা বেগম।সেই থেকে তিনি সেখানে অবস্থান শুরু করেন। কোন অবস্থায় বাড়িতে ফিরতে রাজি হননি  আকলিমা।পরিবার তাকে বিয়ে দিতে চাইলে তিনি কোন ভাবে রাজি হননি।তিনি দুলাভাইয়ের সাথে বিয়ের পীড়িতে বসতে চান।

এরপর শুরু হতে থাকে সালিশ বৈঠক। একাধিক বার বিভিন্ন ভাবে বসেও সমাধান হয়নি বিষয়টি। স্ত্রী থাকতে তার আপন বোনকে বিয়ে করা নিয়ে শুরু হয় আপত্তি-বিপত্তি।

গত (৬ আগস্ট) গ্রাম্য কয়েকজন মাতব্বরের পরামর্শে দুপুরে সালিশ বৈঠক বসে হাফিজ মাওলানা রাশিদ আহমদের বাড়িতে। সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে এ বৈঠক।এক পর্যায়ে সিদ্ধান্ত হয় শ্যালিকাকে বিয়ে করতে হলে স্ত্রীকে তালাক দিতে হবে।

এরপর হাফিজ মাওলানা রাশিদ আহমদ দীর্ঘদিনের সংসার জীবন ও সন্তানের ভালবাসা ত্যাগ করে স্ত্রী স্বপ্না বেগমকে তালাক দেওয়া সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন।

এ বিষয়ে দোহালিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী আনোয়ার মিয়া আনু বলেন, আমি এ বিষয়ে অবগত আছি। আমি মেয়ের মাকে বলেছি আইনের আশ্রয় নেওয়ার জন্য।

দোয়ারাবাজার থানা ইনচার্জ দেবদুলাল ধর বলেন, একটি অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে ছিলাম।মিয়েটি কোন অবস্থায় বাড়িতে ফিরতে চায়না।তাছাড়া সে প্রাপ্তবয়স্ক হাওয়ায় আমরা তার মতের বিরুদ্ধে কিছু করতে পারছি না।

এ ঘটনায় স্থানীয় লোকজনের মধ্যে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।সেই এলাকায় এখন আলোচনার প্রধান বিষয় দুলাভাই-শ্যালিকার প্রেম লিলা।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি