জানা যায়, প্রায় ৭ বছর আগে পারভিনের সঙ্গে তার খালাতো ভাই পার্শ্ববর্তী নাসিরনগর উপজেলার চান্দেরপাড়া গ্রামের রেনু মিয়ার ছেলে তকদির হোসেন (৪০) এর বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তকদির শ্বশুর বাড়িতে ঘরজামাই হয়ে বসবাস করতে থাকে।এরই মধ্যে তাদের দুটি সন্তান জন্ম হয়। আর্থিক সচ্ছলতার জন্য পারভিন সৌদি আরবে পাড়ি দেয়। প্রায় দেড় মাস আগে সে ছুটি নিয়ে দেশে আসে। এরপর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই বাকবিতণ্ডা হত। মঙ্গলবার রাতে খাওয়া দাওয়া শেষে পারভিন তার ঘরে ঘুমায়। রাত অনুমান দেড়টার দিকে পাষণ্ড স্বামী তার স্ত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে তিন টুকরো করে। এসময় পারভিনের শিশু সন্তানদের শোরচিৎকারে প্রতিবেশীরা ঘুম থেকে উঠে পারভিনের ত্রি খণ্ডিত মরদেহ দেখতে পায়। তবে পাষণ্ড স্বামী পালিয়ে যায়।এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘাতক তকদিরকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

মাধবপুর থানার ওসি(তদন্ত) আমিনুল ইসলাম জানান,খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করে। ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন। ঘাতক তকদিরকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।