মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
বিয়ানীবাজারে নামধারী ছাত্রলীগ ক্যাডার সালাউদ্দিন গ্রেফতার কানাইঘাটে কারেন্টে তারে লাগে দাদা-নাতির মৃত্যু চুনারুঘাটে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ১২ বছর পর ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জানুয়ারিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চুনারুঘাটে ৮ ঘন্টার ব্যবধানে একই পরিবারে ৩ জনের মৃত্যু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্ম দিন পালন করেছে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ মাদক বিরোধী অভিযানে জীবন উৎসর্গ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পিয়ারুল
আবছা চোখেও স্ত্রীকে নিয়ে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন অসহায় মালেক

আবছা চোখেও স্ত্রীকে নিয়ে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন অসহায় মালেক

দর্পণ ডেস্ক : যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রাম চালিয়ে আসছেন মালেক-সেতারা দম্পতি। যতই দিন যাচ্ছে ততই যেন তার সংসারের হাহাকার তীব্র হচ্ছে। খাবার নেই , মাথা গোজার ঠাই নেই, অসুস্থ ছানিপড়া স্বামীর জন্য নেই চিকিৎসার খরচ। তবুও রোদ, বৃষ্টি এবং তীব্র শীতও তার পথচলা দমাতে পারেনি।

কখনো শাক-সবজির দোকান আবার কখনো চায়ের দোকান। দু’মুঠো খাবারের জন্য ১৯৯০ সালের দিকে হাতে নিয়েছিলো ভিক্ষার ঝুলি। অপরদিকে ঋণের বোঝা তার মাথায়। প্রতি সপ্তাহে গুনতে হচ্ছে ব্যাংকের কিস্তি।

ঝালকাঠির রাজাপুরের শুক্তগড় ইউপির কেওতা গ্রামের আব্দুল মালেক এবং স্ত্রী সেতারা বেগম তাদের জীবনের কষ্টের কথাগুলো এভাবে জানালেন।

সেতারা বেগম জানান, স্বামী মালেক আনুমানিক ৪০ বছর আগে গাছ থেকে পড়ে অসুস্থ হন। শারিরীকভাবে অক্ষম হওয়ায় দিনমজুরি বা অন্য কোনো কাজও করতে পারছেন না। রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। অর্থাভাবে উন্নত চিকিৎসা না করাতে পারায় আর সুস্থও হতে পারেন নি। চার-পাঁচ মাস আগে থেকে মালেকের চোখে ছানি পড়ে। ফলে স্বাভাবিক দৃষ্টি শক্তিও হারান তিনি।

৩৩ শতাংশ জমি থাকলেও অর্থাভাবে সেখানে ঘর তৈরি করতে পারেননি। বর্তমানে তারা থাকেন উপজেলার বাগরী এলাকার রুহুল আমিনের পরিত্যক্ত জমিতে একটি পলিথিনের চালার ঝুপড়ি ঘরে। বিনা ভাড়ায় ছয় বছর ধরে ওই ঘরেই বসবাস করে আসছেন তারা।

সেতারা বেগম আরো জানান, তার সংসারে অর্থাভাব দেখা দিলে প্রথমে তিনি ২/৩ বছর ভিক্ষা করেন। অষ্টম শ্রেণি পাস সেতারা ভিক্ষাবৃত্তি ভালো না বুঝতে পেরে ভিক্ষা করা ছেড়ে দিয়ে দুই ছেলে ও স্বামীকে নিয়ে খুলনায় চলে যান। সেখানে তিনি অসুস্থ স্বামীকে সঙ্গে নিয়েই প্রায় আট বছর শাক-সবজি বিক্রয়ের ব্যবসা করেন। ওই ব্যবসায় সংসার ভালো না চালাতে পেরে সেখান থেকে বরিশালের এসে রুপাতলি এরাকায় একটি চায়ের দোকান দেন।

বরিশালে থাকতে মাঝে মাঝে বাড়িতে আসতেন তারা। বসতভিটায় বাঁশ খুটির একটি ঘরছিলো তাদের। সংসার চালাতে কষ্ট হলে বাড়িতে এসে গ্রামীন ব্যাংক থেকে লোন নেন সেতারা। সঠিক সময়ে কিস্তি পরিশোধ করতে না পারায় ঋণের পাল্লা ভারী হতে থাকে। বৃদ্ধি পায় কিস্তি পরিশোধের পরিমাণও। ২০০৭ সালের সিডরে তছনছ হয়ে যায় তাদের ঘরটি। এরপরে ভাড়া থাকেন রাজাপুরের বিভিন্ন স্থানে।

এরইমধ্যে তাদের দুই ছেলে হুমায়ুন কবির ও সুমন বিয়ে করেন। তারা বর্তমানে আলাদা সংসার নিয়ে থাকছেন। তারা দুইভাই রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। বাবা মাকে খাওয়ানোর মতো সামর্থ্য নেই তাদেরও। ছোট ছেলে সুমন অসুস্থ বাবা মালেককে তার কাছে নিতে চাইলে মালেক তার স্ত্রী সেতারাকে ছেড়ে শেষ বয়সে কোথাও যেতে চাচ্ছেন না। মালেক চোখে না দেখলেও সেতারা বাজারে শাক-সবজি বিক্রির সময় সেতারার হাত ধরে এসে দোকানের পাশেই চুপ করে বসে থাকেন। অদৃশ্য মায়ার বন্ধনে একে অন্যের পরিপূরক তারা।

ওই ঝুপড়ি ঘরে থেকে সেতারা প্রতিদিন বিকালে গ্রামে গ্রামে হেটে হেটে অল্পদামে হরেক রকম শাক-সবজি কিনে এনে সপ্তাহের সাতদিনই রাজাপুরের হাট ও বাজারে বিক্রি করেন। সেই আয়ের টাকা দিয়ে নিজেদের খাবার, স্বামীর প্রতি মাসে ২/৩ হাজার টাকার ওষুধ ও সপ্তাহে ১২শ’ টাকা কিস্তি পরিশোধ করেন।

সেতারা বলেন, সরকারের কোনো আর্থিক সহায়তা পেলে বা বিনা সুদে টাকা পেলে একটি দোকান দিয়ে একটু ভালোভাবে জীবনযাপন করতে পারতাম।

অসুস্থ মালেক জানান, অনেক দৌড়ঝাপ করে একটি বয়স্ক ভাতার কার্ড করিয়েছি। তীব্র শীতে খুব কষ্টে ঝুপড়ি ঘরে থেকেছি, কেউ কোনো খোঁজ নেয়নি। পাইনি এক টুকরা শীতবস্ত্রও। শুনছি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে গৃহহীনদের ঘর দেয়া হচ্ছে। আমার সেতারাও স্থানীয় মেম্বার মনিরের কাছে ঘর পাওয়ার জন্য গিয়েছিল। তিনি আমাদের কোনো কাগজপত্র নেয়নি। পরে শুক্তাগড়ের ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুল হক মৃধার কাছে কাগজপত্র দিয়েছি। আমাদের একটি ঘরের খুবই প্রয়োজন।

তিনি আরো বলেন, আমার চোখে ছানি পড়েছে। আমি দুই চোখেই ঝাপসা দেখছি। ডাক্তার বলেছেন, অপারেশন করাতে পারলে চোখে দেখতে পাবো। অপারেশন করাতে প্রায় ৬/৭ হাজার টাকা লাগবে। অর্থাভাবে অপারেশন করাতে পারছি না।

এ বিষয়ে স্থানীয় মনির মেম্বার বলেন, আমার কাছে মালেক বা সেতারা কখনোই আসেনি। কে কোথায় থাকে কিভাবে জানবো? আমার কাছে আসলে আমি তাদের সাহায্য করার চেষ্টা করবো।

চেয়ারম্যান মুজিবুল হক বলেন, সেতারা-মালেক দম্পতি খুবই অসহায় অবস্থায় আছেন। তাদের একটি ঘরের খুব প্রয়োজন। ঘর পাওয়ার জন্য পিআইও অফিসে তাদেরকে একটি দরখস্ত করতে বলা হবে।

এ বিষয়ে ইউএনও মো. মোক্তার হোসেন বলেন, যাদের জমি নাই ও ঘর নাই, তাদেরকে জমিসহ ঘর দেয়া হচ্ছে। দ্বিতীয় পর্যায় যাদের জমি আছে ঘর নাই, তাদেরকে ঘর দেয়া হবে। মালেকেরতো জমি আছে। তাই দ্বিতীয় পর্যায়ের কার্যক্রম শুরু হলে যাচাই বাছাই করে ঘর পাওয়ার উপযুক্ত হলে তাকে ঘর দেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি