সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৫:১৭ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
বিয়ানীবাজারে নামধারী ছাত্রলীগ ক্যাডার সালাউদ্দিন গ্রেফতার কানাইঘাটে কারেন্টে তারে লাগে দাদা-নাতির মৃত্যু চুনারুঘাটে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ১২ বছর পর ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জানুয়ারিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চুনারুঘাটে ৮ ঘন্টার ব্যবধানে একই পরিবারে ৩ জনের মৃত্যু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্ম দিন পালন করেছে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ মাদক বিরোধী অভিযানে জীবন উৎসর্গ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পিয়ারুল
বানিয়াচংয়ে ব্যবসায়ীদের হাতে ইউএনও লাঞ্ছিত

বানিয়াচংয়ে ব্যবসায়ীদের হাতে ইউএনও লাঞ্ছিত

দর্পণ ডেস্ক : হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের বড়বাজারে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় ইউএনও মাসুদ রানা ও বিএসটি আই’র পরিদর্শক পারভেজ মিয়াকে লাঞ্ছিত করেছেন ব্যবসায়ীরা। এসময় শত শত ব্যবসায়ী দোকান বন্ধ করে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেন।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে। তবে ঘটনাটি অনাকাঙ্খিত বলে দুঃখ প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ী নেতারা।

সূত্র জানায় বুধবার দুপুরে ইউএনও মাসুদ রানা ও সিলেট বিএসটিআই এর পরিদর্শক মোহাম্মদ পারভেজ মিয়া বানিয়াচং থানার এস আই ফিরোজ আল মামুন ও সঙ্গীয় ফোর্সের সহযোগীতায় স্থানীয় বড়বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এসময় মদিনা হোটেল এন্ড বেকারীকে ২৫ হাজার টাকা ও ফাতেমা গার্মেন্টসকে ১০ হাজার, নোভা বস্ত্রালয়কে ৫ হাজার টাকা সহ মোট ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
এসময় ফাতেমা গার্মেন্টস এর কর্মচারী টাকা দিতে বিলম্ব করায় তাকে পুলিশ ভ্যানে তোলে নেন আইন প্রয়োগকারীরা। এ ঘটনায় আশপাশের ব্যবসায়ীরা ক্ষুব্দ হয়ে ইউএনওর উপর চড়াও হলে ইউএনও দ্রুত গাড়ি নিয়ে স্থান ত্যাগ করেন। এসময় উত্তেজিত ব্যবসায়ীরা গাড়িতে ঢিল ছুড়েন এবং শত শত ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ করে ইউএনও মাসুদ রানার অপসারণ চেয়ে ঘন্টাব্যাপী বিক্ষোভ করেন।

উদ্ভুত পরিস্থিতি সামাল দিতে বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কাশেম চৌধুরী ও বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ এমরান হোসেন ও তদন্ত ওসি প্রজিত কুমার দাশের মধ্যস্থতায় বিষয়টি মিমাংসা হয়।

এব্যাপারে ইউএনও মাসুদ রানা জানান, সরকারী আইন মোতাবেক মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। এতে করে কিছু ব্যবসায়ীরা মোবাইল কোর্টের বিরুদ্ধাচারণ করেছেন। এর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া যেত। কিন্তু ব্যবসায়ী নেতা জয়নাল আবেদীনসহ অন্যান্যদের অনুরোধে আমি উপজেলার একজন অভিবাবক হিসেবে পরবর্তী কার্যক্রম থেকে বিরত রয়েছি।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি