মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:৩১ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
অনিয়মের অভিযোগে এক চেয়ারম্যান বরখাস্ত ভারতের সর্বোচ্চ অসামরিক পুরস্কার পদ্মশ্রী সম্মননা পেলেন দুই বাংলাদেশি ভারতীয় অভিনেত্রীর আত্মহত্যা রাস্তায় নারীদের যৌন হয়রানির ভিডিও ভাইরাল ; সেই বৃদ্ধকে আটক করেছে পুলিশ চুনারুঘাটে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজা জিসি হাইস্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষকের জানাজা সম্পন্ন:বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ সিলেটে আইফোন নিয়ে দ্বন্দ্ব থেকে নাঈমকে খুন করে বন্ধুরা টসে হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ জগন্নাথপুরে স্বজনের দাফনে ব্যস্ত পরিবার, বাড়ি ফিরে মিলল আরেক লাশ একটি লেপের জন্য রাস্তায় ঘোরেন ১৯৫২ সালের ম্যাট্রিক পাস খোদেজা
বাহুবলে ওয়াজ থেকে ফেরার পথে কুপিয়ে হত্যা

বাহুবলে ওয়াজ থেকে ফেরার পথে কুপিয়ে হত্যা

বাহুবল প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের বাহুবলে ওয়াজ শুনে বাড়ি ফেরার পথে আলমগীর মিয়া (১৭) নামের এক কিশোরকে কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষের লোকজন।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার পুটিজুরী ইউনিয়নের বাংলাবাজার নামকস্থানে এ ঘটনাটি ঘটে।

নিহত আলমগীর পুটিজুরী ইউনিয়নের আহমদপুর গ্রামের আফতাই মিয়ার ছেলে। তিনি পরিবারের একমাত্র উপার্জন ক্ষম ব্যাক্তি ছিলেন।

জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার বড়চর গ্রামের একটি ওয়াজ শুনে বাড়ি ফেরার পথে পুটিজুরী ইউনিয়নের বাংলাবাজার নামক স্থানে পৌঁছলে মোটরসাইকেল ও সিএনজি অটোরিক্সা নিয়ে আসা দুর্বৃত্তরা তাকে মাথায় কুপ দিলে সে মাঠিতে লুঠিয়ে পড়ে।

তাৎক্ষনিক তার সাথে থাকা বন্ধু মুন্না সহ স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে বাহুবল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

তার সাথে থাকা উপজেলার যাদবপুর গ্রামের মুন্না জানায়, পৌষ মাসের ২২ তারিখে মুগকান্দি গ্রামের মজনু শাহর ওরসে সম্ভপুর গ্রামের আকাশ নামের এক ছেলের সাথে কথাকাটাকাটি হয়। গতকালও তাদের সাথে বড়চর গ্রামের হাফিজুর রহমান কুয়াকাটা হুজুরের ওয়াজে টেলা ধাক্কা হয়। এরই জের ধরে আকাশ ও তার লোকজন এ ঘটনা ঘটায়।

একটি সূত্র জানায়, হাসপাতাল থেকে মুন্নাকে আটক করে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় দুর্বৃত্তের দুই অভিভাবকে আটক করা হয়েছে।

আটকের বিষয়ে বুধবার (১৩ জানুয়ারী) সকাল ৯টায় বাহুবল মডেল থানার ওসি মো: কামরুজ্জামান ও তদন্ত ওসি আলমগীর কবীরকে কয়েকবার ফোন দিলেও তারা ফোন রিসিভ করেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি