মঙ্গলবার, ২৭ Jul ২০২১, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
লিবিয়ায় হাসপাতালের আইসিইউতে এক বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু পবিত্র মক্কায় গলায় ফাঁস দিয়ে এক বাংলাদেশির আত্মহত্যা বিয়ানীবাজারে গ্রামপুলিশ কর্তৃক এএসআই রতন মিয়ার বিদায় সংবর্ধনা সিলেট -৩ আসনের উপনির্বাচন স্থগিত আগামী বছরের শুরুতে মিলবে ২১ কোটি ডোজ টিকা যুক্তরাষ্ট্রে বিয়ানীবাজারের এক যুবকের আকষ্মিক মৃত্যু জকিগঞ্জে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসারের মৃত্যু, বাদ আসর জানাজা দুবাগ স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক শিক্ষক গোলাম কিবরিয়া স্মরণে ভার্চুয়াল আলোচনা ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন মাইকে ঘোষণা দিয়ে বিয়ানীবাজারের দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধ শতাধিক ফকির আলমগীর আর আমাদের মাঝে নেই
ওসমানীনগরের দৌলতপুরবাসীর স্বপ্নের সেতুর অপেক্ষায়

ওসমানীনগরের দৌলতপুরবাসীর স্বপ্নের সেতুর অপেক্ষায়

দর্পণ ডেস্ক : সিলেটের ওসমানীনগরের পশ্চিম পৈলনপুর ইউনিয়েনে দৌলতপুর গ্রামে জেলে ও নিম্ন আয়ের শতাধিক পরিবারের বসবাস। গ্রামের একদিকে বুড়ি নদী এবং অন্যদিকে সাদিখাল। বুড়ি নদীর ওপর একটি সেতুর অভাবে বর্ষায় নৌকা এবং গ্রীষ্মে সাঁকোই একমাত্র ভরসা তাদের। সম্প্রতি গ্রামবাসীর জন্য একটি সেতু নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু নিজেদের সার্থে কিছু প্রভাবশালী লোক শুরু করেছে বিরোধীতা। তবে গ্রামবাসীর বিশ্বাস এবার তাদের স্বপ্ন পূরণ হবে।

জানা যায়, দৌলতপুর গ্রামবাসীর দাবীর প্রেক্ষিতে বুড়ি নদীর ওপর একটি সেতু নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের আওতায় ‘দৌলতপুর অনিল দাশের বাড়ি ও গজিয়া হাজী তাজ উল্ল্যার বাড়ি সংলগ্ন বুড়ি নদীর ওপর সেতু নির্মাণ’ প্রকল্প প্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য সংশ্লিষ্টরা তাদেও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করেছে। এমন খবরে আনন্দিত হয়েছে গ্রামবাসী। কিন্তু স্থানীয় প্রভাবশালী কিছু লোক সেতুর স্থান পরিবর্তনের সার্থে বিরোধীতা শুরু করায় শংসয় তৈরী হয়েছে গ্রামবাসীর মনে। কারণ ২০১৭ সালে বুড়ি নদীর ওপর ৬০ ফুট দীর্ঘ একটি সেতু নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে দরপত্র আহবান করা হয়। কিন্তু প্রভাবশালীদেরও বিরোধীতার কারণে অর্থ সংকট দেখিয়ে প্রকল্পটি বাতিল করে দেয়া হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দরিদ্র গ্রামবাসীর সার্থে সেতু নির্মাণের জন্য বড় সড়কের প্রয়োজনে নিজের বাড়ির সীমানা প্রাচীর ভেঙে জায়গা দিয়েছেন গজিয়া গ্রামের প্রবীন ব্যক্তি হাজী তাজ উল্যা। গ্রামবাসীও নিজ উদ্যোগে সড়কে কাজ করছেন। তাদের বিশ্বাস এবার সেতু নির্মাণ হবে এবং তাদের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে।

গ্রামবাসী জানান, বর্ষায় প্রায় ৬ মাস বিদ্যালয়ে যেতে পারে না শিক্ষার্থীরা। গ্রীষ্মে সাঁকো পাড়ি দিয়ে ছোট শিশুরা বিদ্যালয়ে যাওয়ার সময় জলে পড়ার ঘটনাও ঘটছে। যোগাযোগ ব্যবস্থার করুণ দশায় শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়ার হার বেশি এখানে।

৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী ঝিনুক দাশ জানায়, বর্ষায় সাঁকো না থাকায় নৌকা অথবা সাতার কেটে নদী পার হয়ে বিদ্যালয়ে যেতে হয়। কিন্তু সব সময় তা সম্ভব হয় না। সেতুটি নির্মাণ হলে আমরা প্রতিদিন বিদ্যালয়ে যেতে পারবো।

স্থানীয় মতি লাল দত্ত বলেন, ২০১৭ সালে সেতু নির্মাণ প্রকল্প দরপত্র আহ্বান করার পরও প্রভাশালী কিছু লোকের কারণে বাস্তবায়ন হয়নি। এবারও সেতু নির্মাণ প্রকল্প নেয়া হয়েছে। আশা করি গ্রামবাসীর কথা বিবেচনায় নিয়ে তা বাস্তবায়িত হবে।

উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মিলন কান্তি রায় বলেন, সেতুটি নির্মাণের জন্য প্রকল্প প্রস্তাব উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে। ঢাকার একটি বিশেষজ্ঞ দল স্থান পরিদর্শন করার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি