বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:০২ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
প্রাণে মারবো না ; এরে দিয়ে বাকি সাংবাদিকদের শিক্ষা দেব

প্রাণে মারবো না ; এরে দিয়ে বাকি সাংবাদিকদের শিক্ষা দেব

দর্পণ ডেস্ক : সাংবাদিক গোলাম সরওয়ার জানিয়েছেন, চোখে বেঁধে, কানে হেডফোন গুজে দিয়ে বেল্ট দিয়ে তারা আমাকে বেধড়ক পিটিয়েছে। তারা বারবার বলছিলেন, একে এমনভাবে মারতে হবে যাতে বাকি সাংবাদিকদের একটা শিক্ষা দেওয়া যায়।

সোমবার (০২ নভেম্বর) চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গণমাধ্যমকে এ কথা জানান তিনি। সরওয়ারের বুক থেকে নিচে বেশ কিছু মারধরের চিহ্ন রয়েছে।

গোলাম সরওয়ার বলেন, মোট চারটা কণ্ঠস্বর শুনেছি। চার জনই আমাকে মারধর করেছেন। তাদের মধ্যে তিন জন শুদ্ধ ভাষায় ও একজন চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলতে শুনেছি। আমাকে যে ঘরে রাখা হয়েছিল সেখান থেকে ট্রেন চলার শব্দ শুনা যেত।

তিনি আরও বলেন, গত বৃহস্পতিবার রাতে পাঠাও মোটরসাইকেলে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে নগরীর ভিআইপি টাওয়ারের সামনে পৌঁছাই। এ সময় পেছন থেকে অজ্ঞাত কিছু লোক নাকমুখ চেপে ধরলে আমি অজ্ঞান হয়ে পড়ি। জ্ঞান ফেরার পর দেখি আমি মাইক্রোবাসের ভেতরে। তারপর থেকে আমাকে একটি ঘরে বন্দি করে নির্যাতন করা হয়।

গোলাম সরওয়ার আজকের সূর্যোদয় চট্টগ্রাম ব্যুরোর স্টাফ রিপোর্টার ও অনলাইন পোর্টাল সিটি নিউজ বিডি ডট কমের নির্বাহী সম্পাদক ও প্রকাশক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

গত রবিবার সন্ধ্যায় সীতাকুণ্ড উপজেলার কুমিরা এলাকার একটা খালের পাশে সাংবাদিক সরওয়ারকে ফেলে যায় অপহরণকারীরা। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাসপাতালের ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে তার চিকিৎসা চলছে।

গত ২৯ অক্টোবর নিখোঁজ হন সাংবাদিক গোলাম সরওয়ার। তার মোবাইল ফোনটিও বন্ধ ছিল। এ ঘটনায় ওই দিন কোতোয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি