মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
বিয়ানীবাজারে নামধারী ছাত্রলীগ ক্যাডার সালাউদ্দিন গ্রেফতার কানাইঘাটে কারেন্টে তারে লাগে দাদা-নাতির মৃত্যু চুনারুঘাটে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ১২ বছর পর ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জানুয়ারিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চুনারুঘাটে ৮ ঘন্টার ব্যবধানে একই পরিবারে ৩ জনের মৃত্যু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্ম দিন পালন করেছে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ মাদক বিরোধী অভিযানে জীবন উৎসর্গ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পিয়ারুল
সিলেটে রায়হান হত্যা ; এএসআই আশেক অসুস্থ হয়ে মনোরোগ বিভাগে

সিলেটে রায়হান হত্যা ; এএসআই আশেক অসুস্থ হয়ে মনোরোগ বিভাগে

দর্পণ ডেস্ক : পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতন করে রায়হান আহমদকে হত্যা মামলায় রিমান্ডে থাকা ওই ফাঁড়ির প্রত্যাহারকৃত এএসআই আশেক এলাহি জিজ্ঞাসাবাদের সময় অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক মাহিদুল ইসলাম আমাদের জানিয়েছেন গত ৩০ অক্টোবর আশেক এলাহি জিজ্ঞাসাবাদের সময় হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে। বর্তমানে তিনি ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, এখনও তার (আশেক এলাহি) শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তৃতীয় তলায় মনোরোগ বিভাগের অধীন ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। কড়া নিরাপত্তায় রেখে তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

এর আগে রায়হান হত্যা মামলায় গ্রেফতার প্রত্যাহারকৃত এএসআই আশেক এলাহিকে গত ২৯ অক্টোবর দুপুরে সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম জিয়াদুর রহমানের আদালতে হাজির করে তাকে পাঁচদিনের রিমান্ডে নেয় পিবিআই। গত ২৮ অক্টোবর রাতে মহানগর পুলিশ লাইন্স থেকে এএসআই আশেক এলাহিকে গ্রেফতার করা হয়।

উল্লেখ্য, ১১ অক্টোবর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতন করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় রায়হানের মৃত্যু হয়।

রায়হান সিলেট নগরের আখালিয়ার নেহারিপাড়ার বিডিআরের হাবিলদার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি নগরের রিকাবিবাজার স্টেডিয়াম মার্কেটে এক চিকিৎসকের চেম্বারে চাকরি করতেন।

এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর রাতে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে পুলিশি হেফাজতে মৃত্যু আইনে এসএমপির কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি।

১৪ অক্টোবর মামলাটি পুলিশ সদর দফতরের নির্দেশে পিবিআইতে স্থানান্তর করা হয়। তদন্তভার পাওয়ার পর পিবিআইর টিম ঘটনাস্থল বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ি, নগরের কাস্টঘর, নিহতের বাড়ি পরিদর্শন করে। সর্বোপরি লাশ কবর থেকে তোলার পর পুনরায় ময়নাতদন্ত করা হয়।

নিহত রায়হানের মরদেহে ১১১ আঘাতের চিহ্ন উঠে আসে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে। এসব আঘাতের ৯৭টি ফোলা আঘাত ও ১৪টি ছিল গুরুতর জখমের চিহ্ন। এসব আঘাতগুলো লাঠি দ্বারাই করা হয়েছে। অসংখ্য আঘাতের কারণে হাইপোভলিউমিক শক ও নিউরোজেনিক শকে মস্তিষ্ক, হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস, কিডনিসহ গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো কর্মক্ষমতা হারানোর কারণে রায়হানের মৃত্যু হয়েছে বলে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি