রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
বিয়ানীবাজারে নামধারী ছাত্রলীগ ক্যাডার সালাউদ্দিন গ্রেফতার কানাইঘাটে কারেন্টে তারে লাগে দাদা-নাতির মৃত্যু চুনারুঘাটে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ১২ বছর পর ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জানুয়ারিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চুনারুঘাটে ৮ ঘন্টার ব্যবধানে একই পরিবারে ৩ জনের মৃত্যু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্ম দিন পালন করেছে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ মাদক বিরোধী অভিযানে জীবন উৎসর্গ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পিয়ারুল
বাহুবলে হাত-পা বেঁধে কলেজ ছাত্র নির্যাতন ; আটক ২

বাহুবলে হাত-পা বেঁধে কলেজ ছাত্র নির্যাতন ; আটক ২

বাহুবল প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের বাহুবলের এক কলেজ ছাত্রকে খুঁটিতে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়েছে। গুরুতর অবস্থায় তাকে প্রথমে হবিগঞ্জ ও পরে সিলেট হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
শুক্রবার দিবাগত রাতে উপজেলার লামাতাসী ইউনিয়নের দ্বিমুড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
রবিবার (০১ নভেম্বর) সকালে ঘটনাটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে জেলাজুড়ে শুরু হয় তোলপাড়।
এদিকে, এ ঘটনায় রবিবার (০১ নভেম্বর) দিবাগত মধ্যরাতে দুই ব্যক্তিকে আটক করে বাহুবল মডেল থানা পুলিশ।
বিষয়টি নিশ্চিত করে বাহুবল মডেল থানার পরিদর্শক আলমগীর কবির জানান, এ ঘটনায় এখনো (এ রিপোর্ট লিখার সময় পর্যন্ত) কোন মামলা হয়নি। তবে দুই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।
ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, কয়েকজন লোক ফয়সল মিয়া নামে ওই কলেজ ছাত্রকে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করছে। এ সময় ফয়সল বাঁচার জন্য আকুতি এবং বার বার আল্লাহ অল্লাহ বলে চিৎকার করছিল। কিন্তু এরপরও চলে বর্বর নির্যাতন।
ফয়সল চুনারুঘাট উপজেলার হাসেরগাঁও গ্রামের আহসান উল্ল্যার ছেলে। সে হবিগঞ্জ বৃন্দাবন সরকারি কলেজের অনার্স (গণিত বিভাগ) চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ও কোরআনের হাফেজ।
স্থানীয় সূত্র জানায়, দ্বিমুড়া গ্রামের আব্দুল হাইয়ের মেয়ে মাহফুজা আক্তার লিজার সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল ফয়সল মিয়ার। শুক্রবার দিবাগত রাতে দেখা করার জন্য লিজার বাড়ীতে যায় ফয়সল। এ সময় ফয়সলকে চোর আখ্যা দিয়ে আটক করে লিজার স্বজনরা। পরে খুঁটিতে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় তার ওপর নির্যাতন চলানো হয়। পরদিন শনিবার সকালে খবর পেয়ে বাহুবল মডেল থানা পুলিশ ফয়সলকে উদ্ধার করে স্বজনের জিম্মায় দেয়। স্বজনরা তাকে প্রথমে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল ও পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে সিলেট সিলেট ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
এ ব্যাপারে নির্যাতনের শিকার ফয়সলের বাবা আহসান উল্ল্যার বলেন, ‘লিজা আমার ছেলেকে মোবাইল ফোনে তাদের বাড়ির পাশে নিয়ে যায়। পরে তার স্বজনরা আমার ছেলেকে বেঁধে এমন বর্ববর নির্যাতন করে। ফয়সলের বোন মোছা. হানিফা আক্তার বলেন- ‘বর্তমানে সে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে। কাউকে চিনতে পারছে না। প্রতিনিয়ত তার অবস্থার অবনতি হচ্ছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি