মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
বিয়ানীবাজারে নামধারী ছাত্রলীগ ক্যাডার সালাউদ্দিন গ্রেফতার কানাইঘাটে কারেন্টে তারে লাগে দাদা-নাতির মৃত্যু চুনারুঘাটে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ১২ বছর পর ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জানুয়ারিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চুনারুঘাটে ৮ ঘন্টার ব্যবধানে একই পরিবারে ৩ জনের মৃত্যু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্ম দিন পালন করেছে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ মাদক বিরোধী অভিযানে জীবন উৎসর্গ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পিয়ারুল
‘জীবিতকে মৃত’ দেখিয়ে দুইজনকে গ্রেফতার ; হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলো পুলিশ

‘জীবিতকে মৃত’ দেখিয়ে দুইজনকে গ্রেফতার ; হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলো পুলিশ

দর্পণ ডেস্ক : জীবিত ব্যক্তিকে মৃত দেখিয়ে দুই তরুণকে গ্রেফতারের ঘটনায় হাইকোর্টে ক্ষমা চাইল পুলিশ। আর অপরাধ না করেও গ্রেফতার দু’জন কীভাবে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে তা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে এ মামলায় গ্রেফতার দুর্জয়কে জামিন আর জীবনকে নির্যাতনের ঘটনায় বিচারবিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) হাইকোর্টে সশরীরে এসে নিজের বেঁচে থাকার প্রমাণ দিলেন চট্টগ্রামের দিলীপ রায়। যাকে হত্যার অপরাধে দিলীপের পূর্ব পরিচিত দুই তরুণ জীবন ও দুর্জয়কে ২০১৯ সালের ২৫ এপ্রিল গ্রেফতার করে চট্টগ্রামের হালিশহর থানা পুলিশ। দুই তরুণের কাছ থেকে নেয়া হয় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও।

দিলীপ রায় বলেন, ওরা (জীবন ও দুর্জয়) আমার সাথে কাজ করতো। আমাকে দাদা ডাকতো। এরপর পুলিশ ওদের গ্রেফতার করেছে। আমাকে হত্যার অপরাধে।

পুলিশের ভয়ভীতি আর নির্যাতনের মুখে দিলীপকে হত্যা না করলেও স্বীকারোক্তি দেন বলে হাইকোর্টকে জানান দুই তরুণ জীবন ও দুর্জয়।

জীবন চক্রবর্তী বাবা জানান, কিছু সাদা পোশাকের পুলিশ এসে আমার ছেলেকে নিয়ে গেছে। ওরা (পুলিশ) আমার ছেলেকে চারদিন ধরে নির্যাতন করেছেন।

এ বিষয়ে ক্ষোভ জানিয়ে হাইকোর্ট মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সাইফুজ্জামানকে প্রশ্ন করেন, পুলিশের এত বড় ভুল কিভাবে হলো?

ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল সারওয়ার বাপ্পী বলেন, আদালত দুর্জয়কে জামিন দিয়েছেন। একই সঙ্গে এ ঘটনায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারকে তদন্ত করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে, অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির লাশের পরিচয় সনাক্তে ভুল হওয়াতেই এমন ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করে পুলিশ।

চট্টগ্রাম হালিশহর থানা এসআই মো. সাইফুজ্জামান বলেন, আদলাতেআইন সঙ্গত কারণে মামলায় যে সব কার্যাদি হয়েছে; সেগুলো আদালতকে বুঝিয়ে বলেছি।

পরে আদালত দিলীপ হত্যা মামলায় দুর্জয়কে জামিন দেন। ১ বছর ৫ মাস বিনাঅপরাধে জেল খাটার পর মুক্তি পায় দুর্জয়। অন্যদিকে জীবনকে নির্যাতন করে স্বীকারোক্তি নেয়ার ঘটনায় বিচারবিভাগীয় তদন্তের আদেশ দেন হাইকোর্ট।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি