মঙ্গলবার, ২৭ Jul ২০২১, ০৫:১৫ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
লিবিয়ায় হাসপাতালের আইসিইউতে এক বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু পবিত্র মক্কায় গলায় ফাঁস দিয়ে এক বাংলাদেশির আত্মহত্যা বিয়ানীবাজারে গ্রামপুলিশ কর্তৃক এএসআই রতন মিয়ার বিদায় সংবর্ধনা সিলেট -৩ আসনের উপনির্বাচন স্থগিত আগামী বছরের শুরুতে মিলবে ২১ কোটি ডোজ টিকা যুক্তরাষ্ট্রে বিয়ানীবাজারের এক যুবকের আকষ্মিক মৃত্যু জকিগঞ্জে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসারের মৃত্যু, বাদ আসর জানাজা দুবাগ স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক শিক্ষক গোলাম কিবরিয়া স্মরণে ভার্চুয়াল আলোচনা ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন মাইকে ঘোষণা দিয়ে বিয়ানীবাজারের দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধ শতাধিক ফকির আলমগীর আর আমাদের মাঝে নেই
নবীগঞ্জের বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান মুকুলকে শোকজ

নবীগঞ্জের বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান মুকুলকে শোকজ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি : নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের (বরখাস্তকৃত) চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুলের বিরুদ্ধে ভিজিডির চাল আত্মসাতের ঘটনায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় থেকে শোকজ করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে ১০ কার্য দিবসের ভিতরে শোকজের বিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন।

গত (২৩ জুন) মঙ্গলবার উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলের বিরুদ্ধে দেড় বছর ধরে ভিজিডির চাল আত্মসাতের অভিযোগ এনে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক কামরুল হাসানের বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন শাহেলা আক্তার সালমা ও সালেহা বেগম।

লিখিত অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্র জানায়- উপজেলার গজনাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল প্রায় দেড় বছর ধরে ভিজিডির সুবিধাভোগী দুই নারীর নামে বরাদ্দকৃত (প্রতিমাসে ৩০ কেজি) চালভিজিডির চাল আত্মসাৎ করে আসছেন। অভিযোগে আরও জানা যায় ওই ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রামের শাহেলা আক্তার সালমা ও সালেহা বেগম প্রায় দেড় বছর আগে ভিজিডির চালের তালিকায় নিজেদের নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলের কাছে ছবি ও ভোটের আইডি কার্ড দেন। এ সময় চেয়ারম্যান তাদেরকে বলেন, তালিকাটি চূড়ান্ত অনুমোদন হয়ে আসলে তারা চাল পাবে। চেয়ারম্যানের এমন আশ্বাসে আনন্দিত হন দরিদ্র পরিবারের এই দুই নারী। এরপর তালিকাভুক্তদের চাল বিতরণ শুরুর খবর পেয়ে চেয়ারম্যানের নিকট যান। চেয়ারম্যান মুকুল তাদেরকে অপেক্ষা করতে বলেন। অনেকদিন অতিবাহিত হলেও দুই নারী চালের জন্য চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। একপর্যায়ে চেয়ারম্যান মুকুল তাদেরকে বলেন, তাদের নাম তালিকায় উঠেনি, তাদেরকে চাল দেয়া যাবে না। পরে তাদের নাম ভিজিডির তালিকায় দেখতে পেয়ে হতভম্ব হয়ে যান এই দুই নারী।

উল্লেখ্য- নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলের বিরুদ্ধে চার বছর ধরে ২২৯ জন লোকের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১০ টাকা কেজির চাল আত্মসাতের খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ৭ জুলাই গজনাইপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের পদ থেকে তাকে বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি