বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:১৭ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
অনিয়মের অভিযোগে এক চেয়ারম্যান বরখাস্ত ভারতের সর্বোচ্চ অসামরিক পুরস্কার পদ্মশ্রী সম্মননা পেলেন দুই বাংলাদেশি ভারতীয় অভিনেত্রীর আত্মহত্যা রাস্তায় নারীদের যৌন হয়রানির ভিডিও ভাইরাল ; সেই বৃদ্ধকে আটক করেছে পুলিশ চুনারুঘাটে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজা জিসি হাইস্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষকের জানাজা সম্পন্ন:বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ সিলেটে আইফোন নিয়ে দ্বন্দ্ব থেকে নাঈমকে খুন করে বন্ধুরা টসে হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ জগন্নাথপুরে স্বজনের দাফনে ব্যস্ত পরিবার, বাড়ি ফিরে মিলল আরেক লাশ একটি লেপের জন্য রাস্তায় ঘোরেন ১৯৫২ সালের ম্যাট্রিক পাস খোদেজা
এবার ধর্ষণের দায় স্বীকার করল তারেক-মাহফুজ

এবার ধর্ষণের দায় স্বীকার করল তারেক-মাহফুজ

দর্পণ ডেস্ক : সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে তরুণী গৃহবধূকে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে নিয়েছে তারেকুল ইসলাম তারেক ও মাহফুজুর রহমান মাসুম। এ নিয়ে এই মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া আট আসামিই নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করল।
রোববার (৪ অক্টোবর) তারেক ও মাহফুজ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম জিয়াদুর রহমানের আদালতে তারেক ও মহানগর হাকিম-২ সাইফুর রহমানের আদালতে মাহফুজ ১৬৪ ধারায় এই জবানবন্দি দিল।
সিলেট মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) অমূল্য কুমার চৌধুরী বলেন, তারা দুজনই ধর্ষণে জড়িত থাকার দায় স্বীকার করেছেন। জবানবন্দি দেওয়ার পর আদালতের নির্দেশে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে রোববার (৪ অক্টোবর) দুপুরে কড়া নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে দিয়ে তারেক ও মাহফুজকে আদালতে হাজির করে সিলেট মহানগরের শাহপরাণ (রহ.) থানা পুলিশ।
গত ২৫ সেপ্টেম্বর এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হন ওই নববধূ। রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বামীর কাছ থেকে ওই তরুণীকে জোর করে তুলে নিয়ে ছাত্রাবাসে ধর্ষণ করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ ঘটনায় ভিকটিমের স্বামী বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় মামলা করেন। মামলায় ছাত্রলীগের ছয় নেতাকর্মীসহ অজ্ঞাত আরও তিনজনকে আসামি করা হয়।
অভিযুক্তরা হল, এমসি কলেজ ছাত্রলীগকর্মী সাইফুর রহমান, কলেজের ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, মাহফুজুর রহমান মাছুম, অর্জুন লস্কর, বহিরাগত ছাত্রলীগকর্মী রবিউল এবং তারেকুল ইসলাম তারেক। অন্য তিন আসামি অজ্ঞাত।
এজাহারভুক্ত ছয় আসামিসহ মোট আটজনকে এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার করে প্রত্যেককে পাঁচদিন করে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এর আগে গত শুক্র ও শনিবার সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, অর্জুন লস্কর, রবিউল, রাজন আহমদ ও আইনুদ্দিনকে রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করা হলে তারা ধর্ষণের দায় স্বীকার করে নিয়ে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি