বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:৫০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
মডেল মৌ এর সাথে প্রেমের সূত্র ধরে মাদকে জড়িয়ে পড়েন সুহেল ফুলতলীর বালাই হাওরে সম্পন্ন হলো ১৪তম ঈসালে সাওয়াব মাহফিল বিয়ানীবাজারে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ সহ এক ব্যক্তি গ্রেফতার সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন ; সভাপতি সামসুল,সম্পাদক মাহফুজ জকিগঞ্জের ৮ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ৪, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী ২, ও স্বতন্ত্র ২ চেয়ারম্যান নির্বাচিত জকিগঞ্জে ভোটকে কেন্দ্র করে উপজেলা নির্বাচন ও কৃষি কর্মকর্তা গ্রেফতার, কাজলসার ইউনিয়নে ভোট স্থগিত লিবিয়ায় পুলিশের গুলিতে বিয়ানীবাজারের আমিনুল নিহত শরীরে ৭০টি গুলির যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন গোলাপগঞ্জ মডেল থানার এএসআই রতন মিয়া বিয়ানীবাজার উপজেলার ১০ ইউনিয়নের ভোটের হিসাব বিয়ানীবাজারে নৌকা ৩, আওয়ামী লীগ(স্বতন্ত্র) ৩, বিএনপি (স্বতন্ত্র) ২, জামাত (স্বতন্ত্র) ২ চেয়ারম্যান নির্বাচিত
এমসি কলেজে গণধর্ষণ : ভারত পালিয়ে যাওয়ার সময় হবিগঞ্জ সীমান্তে গ্রেফতার অর্জুন লস্কর

এমসি কলেজে গণধর্ষণ : ভারত পালিয়ে যাওয়ার সময় হবিগঞ্জ সীমান্তে গ্রেফতার অর্জুন লস্কর

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় অন্যতম আসামী অর্জুন লস্করকে হবিগঞ্জ থেকে গ্র্রেফতার করেছে সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

রোববার ভোর ৬টার দিকে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার মনতলা এলাকার দূর্বলপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মাধবপুর সার্কেল) মো. নাজিম উদ্দিন।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন জানান- রোববার ভোরে সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাধবপুর উপজেলার মনতলা ইউনিয়নের সীমান্তঘেষা দূর্বলপুর গ্রাম থেকে সিলেট এমসি কলেজের ধর্ষণ মামলার অন্যতম আসামী অর্জুন লস্করকে আটক করেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে সে মাধবপুর উপজেলার মনতলা সীমান্ত দিয়ে ভারত পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল।

তিনি আরও জানান- গ্রেফতারের পর সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ আসামী আর্জুন লস্করকে সিলেট নিয়ে গেছে।

উল্লেখ্য- শুক্রবার রাতে এমসি কলেজ ক্যাম্পাস থেকে নব-বিবাহিত এক দম্পতিকে তুলে নেয় ছাত্রলীগ ক্যাডার এম. সাইফুর রহমানের নেতৃত্বে কয়েকজন বখাটে। পরে ছাত্রাবাসে নিয়ে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণ করে ৫/৬ জন। স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদেরকে উদ্ধার করে। গুরুতর আহতাবস্থায় স্ত্রীকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় ধর্ষিতার স্বামী বাদি হয়ে ছাত্রলীগের ৬ ক্যাডারের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৩ জনকে আসামী করে সিলেট মহানগরীর শাহপরাণ থানায় মামলা দায়ের করেন। এছাড়া ঘটনার পর রাতে অভিযান চালিয়ে এমসি কলেজ ছাত্রাবাসের সাইফুর রহমানের রুম থেকে একটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ ধারালো ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় অস্ত্র আইনে আরও একটি মামলা হয়।

গণধর্ষণের ঘটনার পর আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা আসামীদের ধরতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। রোববার ভোরে সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে মামলার প্রধান আসামী সাইফুর রহমানকে এবং অন্যতম আসামী অর্জুন লস্করকে হবিগঞ্জের মাধবপুর থেকে গ্র্রেফতার করা হয়। বাকিরা এখনও পলাতক রয়েছে।

মামলার অন্য আসামীরা হলো- শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেক আহমদ, রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান। এরা সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি