রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০২:৪২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
বিয়ানীবাজারে নামধারী ছাত্রলীগ ক্যাডার সালাউদ্দিন গ্রেফতার কানাইঘাটে কারেন্টে তারে লাগে দাদা-নাতির মৃত্যু চুনারুঘাটে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ১২ বছর পর ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি গ্রেফতার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জানুয়ারিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে চুনারুঘাটে ৮ ঘন্টার ব্যবধানে একই পরিবারে ৩ জনের মৃত্যু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্ম দিন পালন করেছে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ মাদক বিরোধী অভিযানে জীবন উৎসর্গ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পিয়ারুল
এমসি কলেজে গণধর্ষণ : ভারত পালিয়ে যাওয়ার সময় হবিগঞ্জ সীমান্তে গ্রেফতার অর্জুন লস্কর

এমসি কলেজে গণধর্ষণ : ভারত পালিয়ে যাওয়ার সময় হবিগঞ্জ সীমান্তে গ্রেফতার অর্জুন লস্কর

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় অন্যতম আসামী অর্জুন লস্করকে হবিগঞ্জ থেকে গ্র্রেফতার করেছে সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

রোববার ভোর ৬টার দিকে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার মনতলা এলাকার দূর্বলপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মাধবপুর সার্কেল) মো. নাজিম উদ্দিন।

মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন জানান- রোববার ভোরে সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাধবপুর উপজেলার মনতলা ইউনিয়নের সীমান্তঘেষা দূর্বলপুর গ্রাম থেকে সিলেট এমসি কলেজের ধর্ষণ মামলার অন্যতম আসামী অর্জুন লস্করকে আটক করেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে সে মাধবপুর উপজেলার মনতলা সীমান্ত দিয়ে ভারত পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল।

তিনি আরও জানান- গ্রেফতারের পর সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ আসামী আর্জুন লস্করকে সিলেট নিয়ে গেছে।

উল্লেখ্য- শুক্রবার রাতে এমসি কলেজ ক্যাম্পাস থেকে নব-বিবাহিত এক দম্পতিকে তুলে নেয় ছাত্রলীগ ক্যাডার এম. সাইফুর রহমানের নেতৃত্বে কয়েকজন বখাটে। পরে ছাত্রাবাসে নিয়ে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণ করে ৫/৬ জন। স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদেরকে উদ্ধার করে। গুরুতর আহতাবস্থায় স্ত্রীকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় ধর্ষিতার স্বামী বাদি হয়ে ছাত্রলীগের ৬ ক্যাডারের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৩ জনকে আসামী করে সিলেট মহানগরীর শাহপরাণ থানায় মামলা দায়ের করেন। এছাড়া ঘটনার পর রাতে অভিযান চালিয়ে এমসি কলেজ ছাত্রাবাসের সাইফুর রহমানের রুম থেকে একটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ ধারালো ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় অস্ত্র আইনে আরও একটি মামলা হয়।

গণধর্ষণের ঘটনার পর আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা আসামীদের ধরতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। রোববার ভোরে সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে মামলার প্রধান আসামী সাইফুর রহমানকে এবং অন্যতম আসামী অর্জুন লস্করকে হবিগঞ্জের মাধবপুর থেকে গ্র্রেফতার করা হয়। বাকিরা এখনও পলাতক রয়েছে।

মামলার অন্য আসামীরা হলো- শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেক আহমদ, রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান। এরা সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ক্রিয়েটিভ জোন আইটি