রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০২:১৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
জকিগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যাক্তি নিহত বিয়ানীবাজারে নিজ গৃহে বন্যার পানিতে ডুবে এক ব্যক্তির মৃত্যু কুলাউড়ায় মাছ ধরতে গিয়ে সাপের দংশনে যুবকের মৃত্যু সিলেটের বন্যা পরিস্থিতি ঘুরে দেখলেন প্রধানমন্ত্রী বিয়ানীবাজারে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি,পানিবন্দি ২ লাখ মানুষ পুরো সিলেটে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশঙ্কা,বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছেন পৌনে ২ লাখ গ্রাহক সিলেটে দিশাহারা বানভাসি মানুষ,উদ্ধারে নামছে সেনাবাহিনী দুই লাখের বেশি মামলা নিষ্পত্তি করেছে গ্রাম আদালত শিক্ষকের গাফিলতির কারনে পানিতে ডুবে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন গভর্নর হলেন আব্দুর রউফ তালুকদার
যেভাবে নাম এলো প্রিয় “বাংলাদেশ” – পলাশ আফজাল

যেভাবে নাম এলো প্রিয় “বাংলাদেশ” – পলাশ আফজাল

বিশেষ প্রতিবেদন (পলাশ আফজাল) : বাংলাদেশ নামটি কিভাবে এলো; এর পিছনে আছে এক ইতিহাস।স্বাধীনতার অনেক আগেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি অনুষ্ঠানে কুঁড়ি থেকে ফুল হতে যাওয়া এই দেশটির নাম দিয়েছিলেন ‘বাংলাদেশ’।

১৯৬৯ সালের ৫ ডিসেম্বর হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণসভায় ‘বাংলাদেশ’ নামটি চূড়ান্ত করেন বঙ্গবন্ধু নিজেই।ইতিহাস থেকে জনাযায়, ১৯৬৯ সালের পাঁচ ডিসেম্বরের পর মৌখিকভাবে তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তানের নাম হয়ে যায় বাংলাদেশ। এরপর থেকে কাগজেকলমে পূর্ব-পাকিস্তান লিখলেও মুখে সবাই এই অঞ্চলকে বাংলাদেশই বলতেন। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং তৎকালীন বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সচিব তোফায়েল আহমেদ বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে এমন তথ্য নিশ্চিত করে প্রকাশ করেছেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘‘বাংলা একাডেমিতে আয়োজিত ওই স্মরণসভায় বঙ্গবন্ধু জানান, দেশ স্বাধীনের পর নাম ‘বাংলাদেশ’ রাখা হবে। এমনকী তিনি সেদিন স্লোগানও দিয়েছিলেন ‘আমার দেশ, তোমার দেশ-বাংলাদেশ, বাংলাদেশ’।’’ তোফায়েল আহমেদ জানান, বঙ্গবন্ধু কখনও পূর্ব-পাকিস্তান বলতেন না, তিনি সবসময় ‘পূর্ব-বাংলা’ বলতেন।

তোফায়েল আহমেদের এই সব কথার সত্যতা উঠে আসে ১৯৫৮ সালের একটি ঘটনায়। ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮, বিবিসি বাংলার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘‘ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন অবসানের পর ১৯৪৭ সালে বঙ্গ-প্রদেশ ভারত ও পাকিস্তানে বিভক্ত হল। সে সময় পাকিস্তানিরা পূর্ব-বাংলার নাম দিতে চাইলো পূর্ব-পাকিস্তান। কিন্তু এ নিয়ে সেই সময় থেকেই বিতর্ক শুরু হয়। আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ১৯৫২ সালে পূর্ব পাকিস্তানের মাতৃভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পায় বাংলা। এরপর ১৯৫৭ সালে করাচিতে পাকিস্তানের গণপরিষদের তরুণ সদস্য শেখ মুজিবুর রহমান বক্তৃতা দেওয়ার সময় ‘পূর্ব-পাকিস্তান’ নামটির প্রতিবাদ করে বলেন, পূর্ব-বাংলা নামের একটি ইতিহাস ও ঐতিহ্য আছে। আর যদি পূর্ব-পাকিস্তান নাম রাখতেই হয়, তাহলে বাংলার মানুষের জনমত যাচাই করতে হবে। তারা নামের এই পরিবর্তন মেনে নিবে কিনা।সেজন্য গণভোট করতে হবে।’’

বিবিসি’র ওই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়, অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ‘বাংলাদেশ’ শব্দের উৎপত্তিগত ব্যাখ্যা দেন তাদের কাছে। এতে তিনি বলেন, ‘‘যেখানে ‘বাংলা’ শব্দের উৎপত্তি হয়েছে সংস্কৃত শব্দ ‘বঙ্গ’ থেকে। আর্যরা ‘বঙ্গ’ বলে এই অঞ্চলকে অভিহিত করতো বলে ইতিহাস থেকে জানা যায়। তবে বঙ্গে বসবাসকারী মুসলমানরা এই ‘বঙ্গ’ শব্দটির সঙ্গে ফার্সি ‘আল’ প্রত্যয় যোগ করে। এতে নাম দাঁড়ায় ‘বাঙাল’ বা ‘বাঙ্গালাহ্’। ‘আল’ বলতে জমির বিভক্তি বা নদীর ওপর বাঁধ দেওয়াকে বোঝাতো।’’

ইতিহাসবিদ আবুল ফজলের উদ্ধৃতি দিয়ে সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘মুসলমান শাসনামলে বিশেষ করে ১৩৩৬ থেকে ১৫৭৬ সাল পর্যন্ত সুলতানি আমলে এবং ১৫৭৬ সালে মোঘলরা বাংলা দখল করার পরে এই অঞ্চলটি বাঙাল বা বাঙালাহ নামেই পরিচিতি পায়।’

জানা যায়, সোহরাওয়ার্দীর ঐদিনের স্মরণসভায় এই নাম দেওয়ার কারণ হিসেবে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ১৯৫২ সালে সংগ্রামের মাধ্যমে অর্জিত বাংলা ভাষা থেকে-বাংলা। এরপর স্বাধীন দেশের আন্দোলন সংগ্রাম থেকে-দেশ। এই দুটি ইতিহাস ও সংগ্রামকে এক করে ‘বাংলাদেশ’ নামকরণ করা হয়।

এ সম্পর্কে ‘কারাগারের রোজনামচা’ বইয়ে বঙ্গবন্ধুর এই ঘোষণার উদ্ধৃতি রয়েছে। ঐদিন আলোচনায় বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘এক সময় এই দেশের বুক হইতে, মানচিত্রের পৃষ্ঠা হইতে বাংলা কথাটির সর্বশেষ চিহ্নটুকু চিরতরে মুছিয়া ফেলার চেষ্টা করা হইয়াছে।একমাত্র বঙ্গোপসাগর ছাড়া আর কোনও কিছুর নামের সঙ্গে বাংলা কথাটির অস্তিত্ব খুঁজিয়া পাওয়া যায় নাই।জনগণের পক্ষ হইতে আমি ঘোষণা করিতেছি আজ হইতে পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশটির নাম পূর্ব-পাকিস্তান এর পরিবর্তে হবে শুধুমাত্র বাংলাদেশ।’

‘রোয়ার মিডিয়া’ নামে একটি অনলাইন ভিত্তিক ম্যাগাজিন ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ এ প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ নামটি যেভাবে আমাদের হলো’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদনে ‘বাঙালির ইতিহাস’ বইয়ে ড. মোহাম্মদ হান্নান, ১৭৬৮-১৭৮৮ সালের মধ্যে গোলাম হোসায়ন সলীম জইদ পুরী রচিত ‘রিয়াজ-উস-সালাতীন’ গ্রন্থ হতে ‘বঙ্গ’ নামের উৎপত্তি নিয়ে বিশ্লেষণ করা হয়। এতে বলা হয়েছে, মহাপ্লাবন পরবর্তী সময়ে হযরত নূহ (আঃ) তার স্ত্রী, সন্তানসহ ৮০ জন নর-নারী আল্লাহর হুকুমে পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েন, সেখানে বংশবৃদ্ধি শুরু করেন, এবং তাদের বংশধররাই পৃথিবীকে নতুনভাবে সাজান। নূহ (আঃ) এর এক পুত্র হাম এশিয়া অঞ্চলে বংশবৃদ্ধির কাজে নিয়োজিত হন। তারই এক পুত্র হিন্দের নামানুসারে ‘হিন্দুস্থান’, সিন্ধের নামানুসারে ‘সিন্ধু’, আর বঙ্গের নামানুসারে ‘বঙ্গদেশ’ নামের উৎপত্তি হয়।

আবার বঙ্গ নামকরণের পেছনে হিন্দুদের পৌরাণিক তত্ত্বও বিদ্যমান। পৌরাণিক মতে, বঙ্গের নাম এসেছে রাজা বালির পুত্রের নাম থেকে। সেখানে দাবি করা হয়, রাজা বালির এক পুত্র অঙ্গ শাসন করতেন পশ্চিমবঙ্গ, খুলনা ও বরিশাল অঞ্চল। আরেক পুত্র বঙ্গ শাসন করতেন ঢাকা, ময়মনসিংহ ও ত্রিপুরা অঞ্চল। সর্বশেষ পুত্র পুন্ড্র শাসন করতেন উত্তরবঙ্গ ও আসাম অঞ্চল। এই পুত্রের নামানুসারেই তাদের শাসনকৃত অঞ্চলগুলো অঙ্গ, বঙ্গ ও পুন্ড্র নাম লাভ করে।

‘বঙ্গ’ থেকে ‘বাংলা’ নামটি কিভাবে এলো সে প্রসঙ্গে ব্যাখ্যা প্রদান করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন। তার মতে, ‘বাংলা’ শব্দের উচ্চারণ হয়েছে ‘বঙ্গ’ থেকেই, যেটি মূলত ছিল একটি সংস্কৃত শব্দ। আর্যরা নাকি অঞ্চলকে ‘বঙ্গ’ হিসেবে অভিহিত করতো। পরবর্তীতে এই অঞ্চলে বসবাসকারীরা বঙ্গ-এর সঙ্গে ফার্সি ‘আল’ প্রত্যয় যোগ হয় ‘বাঙাল’ বা ‘বাঙ্গালাহ্’। এক্ষেত্রে সৈয়দ আনোয়ার হোসেন মূলত ইতিহাসবিদ আবুল ফজল (আইন-ই-আকবরীর রচয়িতা) বর্ণিত ইতিহাসকে গ্রহণ করেছেন।

তিনি সেই সূত্র থেকে বলেছেন, ‘মুসলমান শাসনামলে বিশেষ করে ১৩৩৬ থেকে ১৫৭৬ সাল পর্যন্ত সুলতানি আমলে এবং ১৫৭৬ সালে মোঘলরা বাংলা দখল করার পরে এই অঞ্চলটি বাঙাল বা বাঙ্গালাহ্ নামেই পরিচিতি পায়।

‘আইন-ই-আকবরী’ গ্রন্থে আবুল ফজল লিখেছিলেন, ‘‘বঙ্গ শব্দের অর্থ জলাভূমি। এর সঙ্গে আল যুক্ত হয়ে হয়েছে বাঙ্গালাহ্। আল মানে শুধু চাষের খেতের (জমির) আলই নয়, ছোট-বড় বাঁধ অর্থেও এটি ব্যবহৃত হতো। প্রাচীনকালে রাজাগণ ১০ গজ প্রশস্ত উঁচু ২০ গজ বিশাল আকার আল নির্মাণ করতেন। বর্তমানেও বৃহত্তর বরিশাল ও ফরিদপুরের অনেক স্থানে ‘বাঙলা’ দেওয়া শব্দটি জলা ভূমিতে বাঁধ দেওয়া অর্থে ব্যবহৃত হয়। বাংলা বন্যা ও বৃষ্টির দেশ, বাংলার সঙ্গে তাই আল (বাঁধ) ঘনিষ্ঠে অনুষঙ্গ।’’

ইতিহাস মতে, বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলা বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার, আসামের মতো কয়েকটি প্রদেশ নিয়ে গঠিত সাম্রাজ্যের নামকরণ করেছিলেন ‘বঙ্গ’। ব্রিটিশ শাসনামলে এই অঞ্চলের নাম হয় ‘বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি’। এরপর ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গের সময় গোটা বাংলায় একটা প্রশাসনিক বিভাজন হয়। বাংলার পশ্চিম অংশ হয়ে যায় ‘পশ্চিম বঙ্গ’ এবং পূর্ব অংশ হয়ে যায় ‘পূর্ব বাংলা’। আর ৪৭ এর দেশভাগের পর পাকিস্তানিরা এই অংশের নাম দেয় ‘পূর্ব-পাকিস্তান’।

১৯৬০-এর মাঝামাঝি থেকে বাঙালি জাতীয়তাবাদ ধারণাটি প্রকৃষ্ট রূপ ধারণ করতে থাকে। ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে একটি স্লোগান নিয়মিতই দেওয়া হতো: ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধরো, বাংলাদেশ স্বাধীন করো।’ অর্থাৎ এই অঞ্চলকে অনেকেই মনে-প্রাণে বাংলাদেশ হিসেবে বিবেচনা করতে শুরু করে দিয়েছিল।

এই নামকরণের দাবি চূড়ান্ত রূপ লাভ করে ১৯৬৯ সালের ২৮ নভেম্বর প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের একটি ভাষণের পর থেকে। যারা ‘পূর্ব পাকিস্তান’ নামটি বদলাতে চাচ্ছিলেন তাদের যুক্তির প্রধান ভিত্তি ছিল, যেহেতু পশ্চিম পাকিস্তানের এক ইউনিট ভেঙে গেছে এবং প্রশাসনিক ইউনিট হিসেবে সিন্ধ, বেলুচিস্তান, পাঞ্জাব এবং উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত অঞ্চলের সাবেক প্রাদেশিক নাম পুনর্জীবিত হচ্ছে, তাই পাকিস্তানের পাঁচটি প্রদেশের মধ্যে সবচেয়ে পূর্বে অবস্থিত প্রদেশের নাম আর ‘পূর্ব পাকিস্তান’ রাখা সঙ্গত হবে না।

এরপর ১৯৬৯ এর ৫ ডিসেম্বর, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তৎকালীন নেতারা এই অঞ্চলের জন্য বিভিন্ন নাম প্রস্তাব করেন। যেমন: স্বাধীন পূর্ব বাংলা, বাংলা, বেঙ্গল, ইস্ট বেঙ্গল, বঙ্গ, বঙ্গ দেশ এবং বাংলাদেশ। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ অধিকাংশ নেতাকর্মীই ছিলেন ‘বাংলাদেশ’ নামটির পক্ষে। শেষ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু প্রস্তাবিত ‘বাংলাদেশ’ নামটিই সকলে একবাক্যে মেনে নেন।

এর পরদিন ৬ ডিসেম্বর ১৯৬৯ বিভিন্ন পত্রিকায় ‘বাংলাদেশ’ নামকরণের খবর ছাপা হয় এবং আতাউর রহমান খান পাকিস্তান অবজার্ভার-এ বঙ্গবন্ধুর এই নামকরণের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি দেয়। এছাড়া ন্যাপের প্রতিষ্ঠাতা মওলানা ভাসানী ১৯৬৯ সালের ৭ ডিসেম্বর প্রকাশ্য জনসভায় পূর্ব পাকিস্তানের পুনঃনামকরণ সমর্থন করে বলেন, ‘ঐতিহাসিক দৃষ্টিকোণ থেকে বাংলাদেশ নামকরণই হবে সঠিক এবং যথার্থ। তিনিও যুক্তি দেন যে, যেহেতু এক ইউনিট ভেঙে গেছে, তাই বাংলাদেশ নামটি পুনরুজ্জীবিত হওয়া উচিত।’ সেই থেকে নথিপত্রতে পূর্ব-পাকিস্তান লেখা হলেও মুখে কেউ পূর্ব-পাকিস্তান উচ্চারণ করতেন না। সবাই বলতেন বাংলাদেশ।

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা ঘোষণায়ও ‘বাংলাদেশ’ নামটি ব্যবহৃত হয়। বঙ্গবন্ধুর ইপিআর-এর বেতার বার্তা এবং পরবর্তীতে কালুরঘাট থেকে প্রচারিত স্বাধীনতার ঘোষণায়ও স্বাধীন দেশের নাম ‘বাংলাদেশ’ উল্লেখ করা হয়। পরবর্তীতে মুজিবনগর সরকার স্বাধীনতার যে ঘোষণা প্রচার করে, তাতেও বলা হয় এই দেশটির নাম হলো ‘বাংলাদেশ’। দেশ স্বাধীনের পরে ১৯৭২ সালের ৪ নভেম্বর যখন প্রথম সংবিধান প্রণীত ও গৃহীত হয় সেই সময়ও সাংবিধানিক নাম দেওয়া হয় ‘বাংলাদেশ’।এভাবেই এলো আমাদের প্রিয় জন্মভূমি, প্রিয় বাংলাদেশ।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ওরাকল আইটি