শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তিঃ
আমাদের সিলেট দর্পণ  ২৪ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে , আমাদেরকে আপনাদের পরামর্শ ও মতামত দিতে পারেন news@sylhetdorpon.com এই ই-মেইলে ।
শিরোনাম :
শ্রীমঙ্গলে চা বাগানের টিলা ধসে ৪ নারী শ্রমিকের মৃত্যু বিশ্বনাথ থানা পুলিশ কর্তৃক মোবাইল কোট পরিচালনা করে এক মাদক বিক্রেতার জেল জরিমানা বিয়ানীবাজারে ঝুলন্ত শিশুর ৪ দিন পর ঝুলন্ত কিশোরের লাশ উদ্ধার শিশু ইমনের মৃত্যু নিয়ে ধূম্রজাল তৈরি ; হত্যা না আত্মহত্যা জানতে চায় স্বজন জকিগঞ্জে গুলিবিদ্ধ হয়ে এক বিজিবি সদস্য নিহত সড়ক দুর্ঘটনায় জালালপুর ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আওলাদ হোসেন নিহত দুবাগের শিশু ইমনের ঝুলন্ত লাশ মুড়িয়ায় পাওয়া গেছে কুলাঙ্গার ওয়াহিদকে গ্রেফতার করেছে জকিগঞ্জ থানা পুলিশ সিএনজি থেকে লাফ মেরে মৃত্যু বরণকারী স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন হয়নি বিয়ানীবাজারের মাথিউরায় যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
পুরান ঢাকায় রঙ ফর্সাকারী নকল ক্রিমের কারখানার সন্ধান

পুরান ঢাকায় রঙ ফর্সাকারী নকল ক্রিমের কারখানার সন্ধান

দর্পণ ডেস্ক : ছোট্ট একটি বাসায় ঘণ্টায় তৈরি হয় কয়েক হাজার পিস রঙ ফর্সাকারী ক্রিম। তিব্বত, নোভা, ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির আদলে নিধি অ্যান্ড লাভলি, এমনকি ভারতের বহু নামিদামি রঙ ফর্সাকারী ব্র্যান্ডের নকল ক্রিম তৈরি হতো এখানে।

পুরান ঢাকার রহমতগঞ্জে হাজী বাল্লু রোডে ‘নিধি কসমেটিকস’ নামে এমন একটি কারখানার সন্ধান মিলেছে। সোমবার সেখানে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ নকল প্রসাধনী জব্দ করা হয়েছে। রাজধানীর চকবাজারসহ সারাদেশে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নকল কসমেটিকম সরবরাহ করতো এই প্রতিষ্ঠান।

সোমবার দুপুরে যৌথভাবে এ অভিযান পরিচালনা করে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) ও র্যাব-৩। অভিযানে ভ্রাম্যমাণ আদালত কারখানাটির দুই কর্মকর্তাকে দুই মাসের জেল, ৬ লাখ টাকা জরিমানা ও প্রায় ত্রিশ লাখ টাকার মালামাল জব্দ করা হয়। তবে প্রতিষ্ঠানটির মালিক মোহাম্মদ নাসিম পালিয়ে গেছেন।

র্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু বলেন, একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে তারা চকবাজার থেকে শুরু করে সারাদেশে সব কসমেটিকস বিক্রি করতো। তবে আমরা এর মালিককে গ্রেফতার করতে পারিনি। খবর পেয়ে আগেই পালিয়ে গেছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, তিন-চার বছর ধরে তারা এখানে এ কার্যক্রম চালাচ্ছে। তাদের বিএসটিআই নেই, তাদের কোনো প্রসাধনী আসল নয়। তাদের ল্যাব নেই, কেমিস্ট নেই।

বিএসটিআইয়ের কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন বলেন, তারা প্রচুর কেমিক্যাল ব্যবহার করছে, যা অত্যন্ত মারাত্মক। তারা মারকারি দিয়ে ক্রিম বানায়। এতে রঙ সাময়িকভাবে ফর্সা হলেও পরবর্তীতে বিভিন্ন চর্মরোগ, এমনকি ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে।

এ সময় সেখানে প্রচুর নকল প্রসাধনী, প্রসাধনী বানানোর যন্ত্র, কেমিক্যাল জব্দ করে র্যাব। পাশাপাশি ৩১/৬/২ বাসাটির দ্বিতীয় তালায় কারখানাটি সিলগালা করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায়..

© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ সিলেট দর্পণ ।

কারিগরি সহায়তায়ঃ-ওরাকল আইটি